রিয়াদ ও জিনিয়া'র অন্যরকম ভালোবাসা ... (২)

Share it:
রিয়াদ ও জিনিয়া'র অন্যরকম ভালোবাসা ...

পর্ব - জিনিয়ার অতীত ...





রিয়াদ ফ্রেশ হয়ে ওর বেডরুমে ইজি চেয়ারে বসে একটি উপন্যাস পড়তে শুরু করে । নতুন এক লেখকের লেখা উপন্যাসটির নাম “ভালোবাসায় হারিয়ে গিয়েছি” । প্রথম প্রথম উপন্যাসটি এক রকম বিরক্তই লেগেছে রিয়াদের; কিন্তু, যতই পৃষ্ঠা উল্টেছে, গল্পের সাথে মিশিয়ে ফেলেছে নিজেকে । পড়তে পড়তে ঘুমিয়ে গেলে কতদিন স্বপ্নে গল্পের নায়ক “সুহাস” হয়ে নায়িকা “কান্তার” সাথে মিশে গেছে সে...। “নতুন হলেও, ছেলেটা অদ্ভুত লেখে”- ভাবছিল রিয়াদ । ওর ভাবনার দেয়ালটা গাড়ির খুব মিহি শব্দেই ছিড়ে গেল । পাশের জানালা দিয়ে চোখের দৃষ্টি নিয়ে যায় শব্দের উৎসের কাছে । জানলা দিয়েই দেখতে পায় একটা কাল প্রাইভেট কার । অন্ধকারের সাথে মানিয়ে নেয়া কালো গাড়িটার ভেতরের আলোতে দেখতে পায় প্রিয়া ( রিয়াদের বউ ), ড্রাইভিং সিটে বসা একটা লোককে কিস করছে ... ডিপ-লিপ কিস । মুহুর্তেই হাতের মুঠ শক্ত হয়ে যায় রিয়াদের; স্বাস ঘন হয়ে যায় আর মাথাটা বোধহয় একটু ঝিম ঝিম করে । ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখে রাত ২টা ৩০ ... অজান্তেই দীর্ঘস্বাস বেরিয়ে আসে; বসে পড়ে ইজি চেয়ারটাতে ।

--------------------------------------


“হাই ডারলিং... এখোনো শোওনি ??” রুমে ঢুকেই রিয়াদের উদ্দ্যেশে বলে প্রিয়া । ওর ব্যাগ খাটের ওপর ঢিল মেরে রেখে ইজি চেয়ারের হাতলের উপর বসে আস্তে করে মাথা নামিয়ে আনে রিয়াদের ঠোঁট স্পর্শ করতে । রিয়াদ চুপ চাপ পরে থাকে চেয়ারটায় । প্রিয়ার নিঃস্বাস্বে বুঝতে পেরে ও চোখ খোলে । দেখতে পায় প্রিয়ার ঠোঁট দুটি এগিয়ে আসছে ওকে স্পর্শ করতে ...। প্রিয়ার ঠোঁটের সাইডে হালকা ফুলে উঠেছে । নিশ্চয়ই কোন শুয়োর কামরেছে আজ ওকে । আর সহ্য হয়না রিয়াদের । উঠে দাঁড়ায় । রাগ সামলে অনেক কষ্টে প্রিয়াকে শুতে যেতে বলে; তারপর নিজের সেলফোনটা নিয়ে পা বাড়ায় ছাদের দিকে ...। সঙ্গি হয় কিছুক্ষন পর পর বুক চিরে বেরিয়ে আসা দীর্ঘস্বাস ।



------------------------------------



ছাদের অন্ধকার পরিবেশকে অল্প কিছু আলো দিয়ে সুন্দর একটি পরিবেশ সৃষ্টি করেছে যেন চাঁদ । ছাদে উঠেই রিয়াদ ঝুলোনো হ্যামকে যেয়ে শুয়ে পরল । সুন্দর চাঁদটাকেও আজকে ভালোলাগছেনা ওর কাছে । কি করবে ভেবে না পেয়ে সেলফোনটা হাতে তুলে নেয় রিয়াদ । হয়তবা নিজের অজান্তেই, অথবা মনের কোনে জমে থাকা সুপ্ত ইচ্ছার কারনেই সেলফোনের স্ক্রিনে জিনিয়ার নাম টা স্ক্রল করে আনে । “কল দেব?” – মনে মনে ভাবে রিয়াদ ...।

“নাহ, থাক” – বাতিল করে দেয় ইচ্ছেটা । রাত তো আর কম হয়নি । নিশ্চয়ই ঘুমিয়ে গিয়েছে জিনিয়া । শুধু শুধু ওর ঘুমটা নষ্ট করে কি লাভ ? এই-সেই হাবিজাবি ভাবে রিয়াদ । চাঁদটার দিকে নজর দিয়ে ওর সৌন্দর্য খুজতে থাকে সে। জিনিয়ার কথা মনে হতেই হঠাৎ করেই যেন নগ্ন চাঁদটাকেও এখন কোনো অপ্সরীর মত দেখাচ্ছে ...। জিনিয়ার সেই সুন্দর, মায়াভরা চেহারা বার বার চোখের পর্দায় ভেসে উঠছে রিয়াদের । হঠাৎ করেই সেলফোনটা ভাইব্রেট হলো দু’বার । কারও ক্ষুদেবার্তা এলে এমন হয় । রিয়াদ তবুও চাঁদের দিকে তাকিয়ে থাকে কিছুক্ষন । তারপর ক্ষুদে বার্তা খোলে সে; খুলেই কেন যেন শিহরিত হয়; হাসি কান ছুঁয়ে যায় ওর অজান্তেই । জিনিয়া লিখেছে –

“Chad ta onek shundor aaj. Taai hoyto ba aaj akhono amar ghum dhorchena .. tai mone holo jar karone ajker chadta amar ato valo lagche take abar ekbar dhonnobad janai ... ami jani amar egulo manay na; tobuo, amaro to mon ache; amio to manush. Ar manusheri valobasha hoy....Good Night”



---------------------------------------------



রিয়াদঃ হ্যালো ... ( মেসেজটা পড়ে আর একটুও দেরী করে না )

জিনিয়াঃ তুমি এখোনো ঘুমোও নি ? ( জিনিয়া পুলকিত )

রিয়াদঃ আমি একাই নিশ্চয়ই কারো রাত সুন্দর করিনি ...। কেউ যে আমার পৃথিবীটাই আজ রঙ্গে রঙ্গে ভরিয়ে দিয়েছে ...। তাকে ধন্যবাদ না শুনিয়ে এ দুটি চোখ ঘুমানোর মত সাহস এবং ভুল নিশ্চয়ই করবেনা ?

জিনিয়াঃ তুমি না খুব সুন্দর করে কথা বল ...। কিভাবে বল এত সুন্দর করে, হুম ?

রিয়াদঃ আগে পারতাম না জানো ... এখন কেনো যেন মুখ থেকে বেরিয়ে যাচ্ছে । আর তুমি সুন্দর, তোমার মন সুন্দর দেখেই আমার কথা তোমার ভালো লাগছে ... বুঝলে ?

জিনিয়াঃ তোমার বউ কোথায় ...?

রিয়াদঃ ঘরে ... ঘুমোচ্ছে ...

জিনিয়াঃ তুমি কোথায় ?

রিয়াদঃ ছাদে ... তুমি ?

জনিয়াঃ বারান্দায় ... তোমাকে মিস করছি ...

রিয়াদঃ আমারও একই অবস্থা রানী ...

জিনিয়াঃ হাঃ হাঃ হাঃ ... এখনও রানী ?

রিয়াদঃ সবসময়ই রানী ... আচ্ছা জিনিয়া; তোমার কথা জানতে চাইলে, আমায় বলবে ?

জিনিয়াঃ কি জানতে চাও, বল ... । আমার জীবনে তো এমন কিছুই নেই যা জেনে তোমার একটুও লাভ হবে ...। আর, আমি তোমাদের ভদ্র সমাজের সাধারন বাসিন্দাও নই রিয়াদ ...

রিয়াদঃ জিনিয়া ... জিনিয়া ...। প্লিজ ...। তুমি এভাবে নিজেকে ছোট করতে পারনা ... পারনা, এই মধুর রাতের স্নিগ্ধ হাওয়ার মন খারাপ করে দিতে ...

জিনিয়াঃ আচ্ছা ... দুঃখিত । এবার বল তুমি কি জানতে চাও ?

রিয়াদঃ দেখ, তুমি অনেক সুন্দর একটা মেয়ে ...। পরী ...। পরীরাও বোধহয় এত সুন্দর হয়না ...

জিনিয়াঃ যাহ ... দেখেছ বুঝি ?

রিয়াদঃ দেখেছি । তবে কোনো পরিকে নয় ... দেখেছি তোমাকে, আমার রানীকে ...।

জিনিয়াঃ আচ্ছা বাবা, এখন বল ‘তুমি কি জানতে চাও?’

রিয়াদঃ তুমি এই পথে কিভাবে এলে ...?

রিয়াদের প্রশ্নের পর ওপাশে দীর্ঘ নিরবতা । হালকা বাতাসও যেন গাম্ভীর্যের ভরে ভারী হয়ে যাচ্ছে ... দীর্ঘস্বাস শোনা যায় জিনিয়ার । নিরবতা ভেঙ্গে –

জিনিয়াঃ কেউ কখোনো আমায় এমন প্রশ্ন করেনি । আমাকে যখন যার দরকার নিয়েছে , ইচ্ছেমত ভোগ করেছে, মানুষগুলো তাদের ভেতরের পশু গুলোর সাথে আমাকে খেলিয়েছে । খিদে মিটে যাবার পর ছুড়ে ফেলে দিয়েছে নষ্ট টিস্যু’র মত ...। ফিরে তাকায়নি । তুমি আমার জীবনে এমন একজন প্রথম পুরুষ যে কিনা আমায় ভোগ করোনি; আমায় ভালোবেসেছ ...। ছুড়ে ফেলে দাওনি, তাঁর প্রমাণ তুমি এখনও আমার সাথে কথা বলছ ...। আর এখন এমন একটা প্রশ্ন করলে যে কেউ কোনদিন করেনি ...।

আবার নিরবতা । রিয়াদ কি বলবে ভেবে পাচ্ছে না ... । জিনিয়ার মনে আঘাত করেছে ভেবে নিজেকে অনেক অপরাধী লাগছে রিয়াদের ...। রাত বাড়ছে ...। নিরবতার রাত আজ ... অবশেষে জিনিয়ার হালকা ভেজা কন্ঠ কানে ভেসে আসে রিয়াদের ... ।

জিনিয়াঃ আচ্ছা ... শোন তবে, আমার কাহিনী ...। তোমার মোবাইলে ক্রেডিট আছে তো ?

রিয়াদঃ হ্যা, সমস্যা নেই ... কিন্তু, তুমি বলতে না চাইলে থাক না ... পরে না হয় শুনব ...?

জিনিয়াঃ না না ... পরে হবে কেন ? আজই শোনো ...

জিনিয়া বলতে শুরু করে,-

দু’বছর আগের কথা ...। আমি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখা করার সময় কিছু টাকার প্রয়োজন হয় আমার । স্টুডেন্ট পড়িয়ে কুলাতে পারছিলাম না । গ্রামে অসুস্থ মা আর ছোট একটা বোন । থাকি হলে । কিছু টাকা না পাঠালে গ্রামে কিভাবে চলবে ওরা ? এই ভেবে একটি পার্ট-টাইম চাকরীতে জয়েন করি আমি ... পোস্ট “রিসিপশনিস্ট” । ৩ থেকে ৪ ঘন্টা ওখানে কাজ করতে করতে ক্লান্ত হয়ে স্টুডেন্ট পড়াতে ইচ্ছে হতোনা আর । একরকম বাধ্য হয়েই বলা যায় পড়ানো ছেড়ে দিলাম । আমি যে অফিসে কাজ নিয়েছিলাম সেই অফিসের চেয়ারম্যানের পি.এস এর নাম ছিল মাহিম । স্মার্ট ছিল, আচরণ ছিল অনেক আন্তরিক ...। আমি যখন অফিসে কাজ করতাম, মাঝে মাঝেই আমাকে সময় দিত, মানে গল-টল্প করত আরকি ...। এভাবে, আস্তে আস্তে কাছে এসে একটা সময় আমার ভালো একজন বন্ধু হয়ে গেল সে । কিছুদিন পর ও আমাকে আমার হলে ড্রপ করা শুরু করল; আমরা ঘুরতে যেতাম, খেতে যেতাম । বিশেষ বিশেষ দিনে এই ধর যেমন একুশে ফেব্রুয়ারী, নববর্ষ ইত্যাদিতে একসাথে না থাকলে আমাদের চলতই না । ওর অমায়িক আচরন আমার ভেতরটায় ওর জন্য নিরেট ভালোবাসার তৈরী করে দিয়েছিল আমার অজান্তেই ...। ও থাকত ধানমন্ডির একটি ফ্লাটে । ও আস্তে আস্তে আমাকে ওর সাথে মিশিয়ে ফেলছিল । আমার এত বছর ধরে ভালোবাসা বিরোধী মন টাতে আস্তে আস্তে করে ভালোবাসার একটা দালান গড়ে তুলছিল ও ।

এটুকু বলে থেমে যায় জিনিয়া ...। ফোনের ওপাশ থেকে জিনিয়ার দীর্ঘস্বাস শুনতে পায় রিয়াদ ...। কিছুক্ষন চুপ করে থেকে জিনিয়া আবার বলতে শুরু করে,-

আমরা আস্তে আস্তে অনেক কাছে আসতে শুরু করি ...। একদিন খুব ভোরে ও আমার হলের নিচে দাঁড়িয়ে আমায় ফোন দেয় । নিচে যেতেই লাল টকটকে সতেজ একটা গোলাপের তোড়া হাতে ধরে, হাটু গেরে নিচু হয়ে আমায় প্রোপোজ করে ...। না করতে পারিনি আমি; অনেক আগেই ওর ভালোবাসায় মুগ্ধ হয়ে গিয়েছিলাম কিনা ...। সেদিন সকাল থেকে আমরা ঘুরতে থাকি । সারাটা সকাল রিক্সা নিয়ে অনেক ঘুরে বেড়াই । দুপুরে ও আমাকে নিয়ে ওর বাসায় যায় । বাসাটা দেখে আমার একটুও আনইজি লাগছিল না ...। আমি বসার পর ও আমার জন্য কফি নিয়ে এল ...। আমায় নিয়ে ওর বেডরুমে গেল । আমার মনটা শায় দিচ্ছিল আবার দিচ্ছিল না ...। বাসায় একা আমরা ভালোবাসার দু’টি পাখি ছাড়া আর কেউই ছিল না সেদিন ...। আমি একটা শাড়ী পরা ছিলাম । সাদার মাঝে ঝলমলে লাল কাজ করা, খুবই প্রিয় শাড়ী ছিল আমার । ও বিছানায় আমাকে বসিয়ে ও নিচে বসে আমার হাত দু’টি ওর কোলের মাঝে নিল । আলতো করে ওর ঠোঁট দিয়ে ছুঁয়ে দিল আমার হাত । সেটুকু স্পর্শই ছিল আমার কুমারী জীবনের প্রথম শিহরনের কারন ...। ওর ঠোঁট আমার হাত স্পর্শ করার সাথে সাথে যেন আমার নেশা নেশা লাগতে লাগল ...। আমি ওর দিকে তাকিয়ে আছি ...। ও আস্তে আস্তে করে আমার পাশে বসে আমার ঠোঁট দুটি চুসতে লাগল ...। আমার মাথাটা ঝিম ঝিম করছিল তখন । আমি ওর মাথাটা ধরে আমার বুকের সাথে চেপে ধরলাম ...। আমার মনে হচ্ছিল আমি জেগে জেগে স্বপ্ন দেখছি ...। ও আমাকে দাড় করিয়ে আমার পেছনটা চাপছিল দু’হাতে ... । অন্যরকম এক অনুভূতিতে আমি আর তখন এই পৃথিবীতে ছিলাম না যেন । আমার নিচম্বের কাছ থেকে একটা হাত সরে গিয়ে আমার ব্লাউজ খুলে দিল । আমার ব্রায়ের উঁচু হওয়া যায়গাতে ওর দাঁত আস্তে আস্তে সোহাগ দিচ্ছিল যেন । ওর আদরে আমি পাগল হয়ে গিয়েছিলাম যেন, নিজেই নিজের ব্রাটা খুলে আমার বুক ওর সামনে মেলে ধরি ...। ও খুব যত্ন করে আমার নিপলস চুষতে থাকে ...। আমার নিচটা তখনই ভিজে গেছে ...। .............................. এই রিয়াদ, শুনছ ?

রিয়াদঃ হুম, বলো বলো, তারপর ?

তারপর ও আমায় কোলে তুলে বিছানায় নিয়ে গিয়ে সবকিছু খুলে আমার পা দুটো দু’পাশে ছড়িয়ে দিল ... আমি পা ছড়িয়ে অপেক্ষা করছিলাম ওর জিহবের । ওর জিহবটা প্রথম আমার ক্লিট ছুলো ... আস্তে আস্তে ভর দিয়ে চুষতে লাওলো ... । আমি পাগলের মত শীৎকার করছিলাম; আমার প্রথমবার ছিল ...। ভয় হচ্ছিল অনেক,”ব্যাথা পাব” ভেবে ...। ও অনেক্ষন চুষে আমার উপরে উঠে আমার মুখের কাছে ওর পেনিসটা নিয়ে এল । অনেক অবাক হয়ে দেখেছিলাম কিছুক্ষন । প্রথম একটি ছেলের পেনিস দেখছি ...। আমি হাতে ধরে দেখছি ... ভালোই বড় ছিল । ও আমাকে মুখে নিতে বললে কৌতুহল বসতই মুখে নিলাম ওটা ...। প্রথম প্রথম বেলুনের এক রকম বোটকা গন্ধ পেলেও কিছুক্ষন পর অন্য রকম মজাও লাগছিল ... । ও জোরে জোরে শীৎকার করেই চলেছে ...। চুষতে চুষতে হঠাৎ করে আমার মুখে গরম কি যেন পরল, স্বাদটা নোনতা-টক ... ভালো লাগলোনা । বুঝলাম এটা ওর কামরস ...। মুখ থেকে বের করে দিলাম । ওর দিকে চেয়ে দেখি ও হাপাচ্ছে । আমার মাথার ঝিম ঝিমানিটা হালকা বেড়েছে ...। আর যৌন উত্তেজনার জন্যতো মনে হচ্ছিল সুখের ভেলায় ভাসছিলাম । আমি চুষছিলাম ওরটা, আর আমার প্রি-কাম বেরহচ্ছিল অল্প অল্প ...। ও আমাকে একটা চুমু দিয়ে আমার পা দু’টো কাঁধে তুলে নিল । বুঝতে পারলাম ওর গ্ল্যান্ড পেনিসটা আমার যোনির মুখে রাখল ... । তারপর আমাকে বলল ব্যথা পাবে একটু ... রেডি ? আমি মাথা ঝাকালে ও একটু একটু চাপ দিতে দিতে হঠাৎ অনেক জোরে চাপ দিয়ে ঢুকিয়ে ফেলল । ব্যথায় ককিয়ে উঠেছিলাম আমি ...। চোখের কোনায় জল চলে এসেছিল, ব্যাথার চোটে বসে পড়েছিলাম । ও আমাকে আবার শুইয়ে দিয়ে একটা সাদা কাপর দিয়ে আমার ওখানটায় মুছে দিল । তারপর আস্তে আস্তে শুরু করল ...। অনেক কেয়ারফুলি করছিল ও । একটু খানি ব্যাথার পর ব্যাথার জায়গাটা দখল করে নিল প্রচন্ড সুখানুভূতি, যে সুখটা অন্তত বর্ননা করা যায়না ...। ওর পেনিসটা আমার মনে হলো একেবারে ভেতরে যেয়ে গুতো মারছে । প্রতিটি স্ট্রোকে মনে হচ্ছিল আমার শরীরে আরাম বোতলজাত করে ঢেলে দেয়া হচ্ছে ...। ও আমায় হামাগুড়ি দিয়ে বসতে বললে আমার লজ্জা হচ্ছিল প্রথমে, কিন্তু ও আমায় তুলে বসিয়ে দিল । পেছনে বসে ও ভাবেই ঢুকাতে আর বের করতে লাগল দ্রুত । এভাবে বসে করায় মনে হচ্ছিল এর চেয়ে বেশি সুখ আর নেই ...। উত্তেজনার মাঝেও আমার ক্লান্ত আর অনেক ঘুম ঘুম লাগছিল ...। দু’জনে সমানে চেচিয়ে শীৎকার করছিলাম । তারপর ও আমাকে ওর উপরে এনে বসিয়ে দিল ... । এবার আরও একটি নতুন অভিজ্ঞতার পথে অনভিজ্ঞ আমি ওর শক্ত হয়ে থাকা অস্রটির উপর লাফাতে লাগলাম । ও নিচ থেকে আমার বুক হাতাচ্ছিল আর মাজা নাড়িয়ে আমায় সাহায্য করছিল । একটু পর আমার সারা শরীর কাপতে লাগল আর কিছু বুঝে ওঠার আগেই আমার হয়ে গেল ...। আমি ক্লান্ত হয়ে বসে তখনই ওর গরম রস নিজের ভেতরে অনুভব করলাম ...। ক্লান্ত আমি বিছানায় গা এলিয়ে দিলাম ... ।তারপর বোধহয় ঘুমিয়ে পড়েছিলাম ...। পরদিন সকালে ঘুম ভাংলো ...। ওকে জিজ্ঞেস করলে আমায় জানালো যে প্রথম বারের কারনে ক্লান্ত হয়েছিলাম বলে হয়তবা এত ঘুমিয়েছি ...। আমি ওকে বিশ্বাস করে ওর সাথে ব্রেকফাস্ট করলাম আর পরে ও আমায় হলে নামিয়ে দিল ... । আমি তখন ক্লাসে করলাম, ঘুরলাম ... বিকেলের দিকে হালকা কেনা কাটার জন্য নিউ মার্কেট গিয়ে আমি ভেঙ্গে গেলাম যেন । ও একটি মেয়েকে নিয়ে এসে, মেয়েটির জন্য ব্রা-পে... কিনছিল ...। আমার চোখ ভেজা তখন । মানুষ আমায় দেখছিল “আমি কাদছি” ... । ওরা ট্যাক্সিতে উঠলে আমি ওদের ফলো করে দেখি ওই মেয়েটাকে নিয়েও ও ওর বাসায় ঢুকছে ...। আমার সদ্য গড়ে ওঠা সুখের পৃথিবীটা যেন নিমিষেই ভেঙ্গে গেল ...। খোজ নিয়ে জানলাম আমার মত অনেক মেয়েরই প্রেম সে, অন্তরের সেই সত্যি ভালোবাসা ...। পরদিন অফিসে ফিরে সবচেয়ে বড় চমক পেলাম ...। তাঁর সাথে রিলেশন ব্রেক করব শুনে সে আমায় কারন জিজ্ঞেস করল, বলে দিলাম । শান্ত, ভদ্র সেই মাহিম তখন তাঁর মোবাইলে আমার অনেক নগ্ন ছবি দেখালো, যা দেখে আমার দুনিয়াটা তখন কালবৈশাখী ঝড়ের মেঘ ধারন করেছে যেন .................................। বুঝলাম, সেদিন কফির মাজে সে হালকা ঘুমের মেডিসিন দিয়ে ছিল ... আর ঘুমিয়ে যাবার পরেই সে ছবিগুলো তুলেছে ...।

রিয়াদঃ থামলে যে ? আর বলবেনা ?

জিনিয়াঃ আর তো একটু বাকি, কেন বলবোনা ? ........................ সে আমায় ব্ল্যাক-মেল করে তাঁর বসের সাথে বিছানায় যেতে বাধ্য করল । ছোটখাট একটি ব্যাবসা করত মাহিম ... ওর বিসনেস পার্টনারকেও বহু আনন্দ দিতে হয়েছে আমার ...। এভাবে একদিন ঘৃনা জন্মে গেল নিজের প্রতি ... একজন বড় পাওয়ারফুল লোককে সং দিতে যেয়ে তাকে ছলনায় ফেলে মাহিমকে মেরে ফেলতে বাধ্য করলাম ...। ওর কাছে থাকা ছবিগুলো নষ্ট করলাম ...............। সবই ঠিক করে ফেললাম একে একে । কিন্তু ছাড়তে পারলাম না সহজ ভাবে টাকা কামানোর এই পথটা ..................। আর তাই আমি এখন তোমাদের মত বড় লোকদের খেলনা ...

কাঁদছে জিনিয়া ......। ওর মতো কাহিনী রিয়াদ আগেও শুনেছে ... কিন্তু আজ জিনিয়ার চোখের মত ওর মনটাও ভিজে গেছে .................. কি বলবে ভেবে পাচ্ছেনা ও ...

জিনিয়াঃ বিশ্বাস কর, আমি আমায় অনেক ঘৃনা করি; আত্মহত্যা করতে ইচ্ছে করে মাঝে মাঝেই ...। কিন্তু মা আর বোনকে কে দেখবে তাহলে ?

রিয়াদঃ পাগলি ...। এই শোন, তোমার সাথে দেখা করে যাবে, এখন ?

জিনিয়া অবাক হয় ...। একটু সময় নেয় , হয়তোবা ঘড়ি দেখে ...। বলে,

জিনিয়াঃ দেখেছ কত বাজে ? এত রাতে ... কিভাবে ?

রিয়াদঃ হ্যা না না ?

জিনিয়াঃ পাগলামি করোনাতো ... কাল দেখা করি ? এতরাতে এ সময় রাস্তায় বিপদ হতে পারে ...

রিয়াদঃ থাক । লাগবেনা ...

জিনিয়াঃ আচ্ছা ঠিক আছে বাবা, কিন্তু শর্ত আছে ! পাঁচ মিনিটের মাঝে আসলেই ঢুকতে দেব । নইলে বারান্দাতেও যাব না ... রাজি ?

রিয়াদঃ নিচে তাকাও ...

জিনিয়া রিয়াদের কথা শুনে অবাক হয়; নিচে তাকায় ... আবছা আলোয় দেখে রিয়াদ দাঁড়িয়ে আছে ... ট্রাউজার আর টি-শার্ট পড়া ...। ও দৌড় দেয় ... গেট খুলতে হবে যে ...। জিনিয়া লক্ষ করেনা ... ওর নিপলস শক্ত হয়ে গেছে ... ।



( চলবে ...)
Share it:

Post A Comment:

0 comments: